শীলানুস্মৃতি ভাবনা

0
221
Image result for free buddhist meditation

নিউজ তুলিপ এক্কা, নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

 সংগ্রহীত

 শীলানুস্মৃতি_ভাবনা শীলানুস্মৃতি ভাবনা কি? ইহার অনুশীলন কি প্রকার? ইহার লক্ষণ কি? রস কি? পদস্থান কি? ইহার কার্যপ্রণালি কি রকম? শীল আচরণে যোগী বিশুদ্ধ নীতিসমূহ অনুস্মরণ করেন। এই অনুস্মৃতিই স্মৃতি ও সম্যক স্মৃতি। এইরূপে, শীলানুস্মৃতি কি প্রকার জানিতে হয়। শীলানুস্মৃতিতে চিত্তের শান্তিতে অবস্থান ইহার অনুশীলন। শীলগুণ স্মরণ ইহার লক্ষণ। ক্লেশে ভয় দর্শন ইহার রস। শীলপালনের অতুলনীয় সুখের প্রশংসা ইহার পদস্থান। শীলানুস্মৃতি ভাবনার দ্বাদশ প্রকার ফল আছে; যথা : যোগী আচার্যকে সম্মান প্রদর্শন করেন, ধর্ম ও ভিক্ষুসংঘকে শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেন, সর্বদা শীলে প্রতিষ্ঠিত থাকেন, দানের প্রশংসা করেন, স্মৃতি সংরক্ষণ করেন, অনুমাত্র পাপেও বিপদ ও ভয় দর্শন করেন, নিজে পাপকর্মে বিরত থাকেন, অন্যকেও পাপ হইতে রক্ষা করেন, ইহকাল ও পরকালের জন্যও তাঁহার কোনো ভয় থাকে না এবং সকল শীল প্রতিপালনের যোগী বহু প্রকার সুখভোগ করেন এই সকল শীলানুস্মৃতি ভাবনার ফল। ‘ইহার কার্যপ্রণালি কি রকম’? নূতন যোগী নির্জন স্থানে গমন করেন এবং তাঁহার চিত্তকে শান্ত রাখেন। শান্তচিত্তে তিনি এইরূপে অনুস্মরণ করেন—‘আমার শীল
অখণ্ড, অচ্ছিদ্র, নিষ্কলঙ্ক, নির্দোষ, স্বাধীন, বিজ্ঞজন প্রশংসিত, নির্মল, সমাধি উৎপাদক’। যদি শীল
 অখণ্ড হয়, তখন ইহা অচ্ছিদ্র হয়। যদি শীল অচ্ছিদ্র হয়, তখন ইহা নিষ্কলঙ্ক হয়। অন্যান্য সকল এই একই প্রকারে জানিতে হয়। আবার, যখন শীল বিশুদ্ধ হয়, তখন ইহা সমস্ত কুশলধর্মের মূল হয়, সেই কারণে শীল ‘অখণ্ড ও অচ্ছিদ্র’ নামে অভিহিত হয়। যেহেতু শীলগুণে লোকসমাজে সম্মান লাভ হয়, শীল নিষ্কলঙ্ক ও নির্দোষ নামে কথিত হয়। শীল অর্হৎগণের প্রীতি বর্ধন করে ও কোনো ক্লেশ উৎপন্ন করে না, সেই কারণে শীল ‘বিজ্ঞজন প্রশংসিত’। শীল মিথ্যাদৃষ্টির প্রভাবে প্রভাবান্বিত নহে, সেই কারণে শীল নির্মল, শীল নির্বাণপথের সহায়, সেই কারণে শীল ‘সমাধি’ উৎপাদক। অধিকন্তু, যোগী অন্য প্রকারে শীলগুণ অনুস্মরণ করেন, তাহা এইরূপ—‘শীল ক্লেশ বিমুক্ত সুখ। শীলবান লোক সম্মানের পাত্র। শীল সম্পদ নিরাপদ। ইহার ফল পূর্বে বিবৃত হইয়াছে’। এইরূপে, শীল কি প্রকার তাহা হৃদয়ঙ্গম করিতে হয়। এই সকল প্রণালিতে, যোগী ইহার গুণরাশি ভাবনা করিতে করিতে ‘শীলানুস্মৃতি’ অনুস্মরণ করেন। যোগীর স্মৃতি ও শ্রদ্ধাবলে তাঁহার চিত্ত একাগ্রতা লাভ হয়। চিত্ত একাগ্রতা লাভ করিলে, যোগী নীবরণসমূহ বিনাশ করেন, ধ্যানাঙ্গসমূহ উৎপন্ন করেন ও উপচার সমাধি লাভ করেন। অন্যান্য বিষয় উপরে বিশদরূপে বর্ণনা করা হইয়াছে। 

সূত্র: বিমুক্তিমার্গ ষষ্ঠ গুচ্ছ অষ্টম অধ্যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here