উখিয়ায় দুই সন্তানের জননীর রহস্যজনক মৃত্যু

0
290

কক্সবাজারের উখিয়ায় আপু বড়ুয়া (২৬) নামে দুই সন্তানের জননীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

তিনি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের উত্তর ঘুমধুম বড়ুয়াপাড়ার যিনাংশু বড়ুয়ার মেয়ে।

সোমবার সকাল ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা এ নিয়ে নিশ্চিত নয় তারা।

এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে৷

গত ৫ অক্টোবর (সোমবার) কক্সবাজারের উখিয়া হাসপাতালে স্ত্রীর লাশ রেখে পালিয়ে যান স্বামী উপল বড়ুয়া (৩৫)।

পরে ওই গৃহবধূর আত্মীয়স্বজনের খবরের ভিত্তিতে হাসপাতাল থেকে লাশটি উদ্ধার করে কক্সবাজার মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

উখিয়া উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নের ভালুকিয়াপালং এলাকার সন্তোষ বড়ুয়ার ছেলে উপল বড়ুয়ার (৩৫) সঙ্গে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের উত্তর ঘুমধুম বড়ুয়াপাড়ার যিনাংশু বড়ুয়ার মেয়ে আপু বড়ুয়ার (২৮) বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দুটি সন্তান রয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়,

নিহত গৃহবধুকে প্রায়ই সময় তার স্বামী উপেল বড়ুয়া শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো। রোববার রাতেও তার স্বামী কবরী বড়ুয়াকে মারধর করে। মাদকাসক্ত ও উশৃঙ্খল স্বামীর অত্যাচার থেকে মুক্তি পেতে সে আত্মহত্যা করেছে।

আপু বড়ুয়ার বড় ভাই মৃদুল বড়ুয়া বলেন,

তার ভগ্নিপতি উপল বড়ুয়া ইয়াবা সেবন ও মদ্যপ অবস্থায় বাড়িতে এসে তার বোনকে প্রায়ই নির্যাতন করত। ইতোমধ্যে এ নিয়ে একাধিকবার বিচার-সালিশও হয়েছে।

জামাল উদ্দিন নামে এক শিক্ষক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন,

৫ম শ্রেণির ছাত্র উর্দয় বড়ুয়া মুগ্ধ’র মাতা দু:খিনী কবরী বড়ুয়া নিহত! অনেকের অভিযোগ বেকার স্বামী উপেল বড়ুয়া তাকে হত্যা করেছে।

রত্নাপালং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খাইরুল আলম চৌধুরী বলেন, খবর পেয়েছি গলায় ফাঁস দিয়ে এক গৃহবধু আত্মহত্যা করেছে।

উখিয়া থানার ওসি আহমেদ সঞ্জুর মোরশেদ বলেন,

আত্মীয়স্বজনের খবরের ভিত্তিতে হাসপাতাল থেকে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here